You are here
Home > Blog > Wich Platform Best Blog for Beginners?

Wich Platform Best Blog for Beginners?

Wich Platform Best Blog for Beginners?

Wich Platform Best blog for Beginners? Blogger or WordPress

আপনি কি ব্লগ শুরু করতে চাচ্ছেন? কিন্তু বুঝতে পারছেন না কোন প্লাটফর্ম থেকে আপনি ব্লক শুরু করবেন, “ব্লগার নাকি ওয়ার্ডপ্রেস” তাহলে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন আমরা এখানে বিস্তারিত আলোচনা করব “Wich Platform Best blog for Beginners” চলেন শুরু করা যায়.

 

নতুনদের জন্য ব্লগার সেরা। Blogger Is Best For Beginners

যদি আপনি বিগিনার হন তাহলে আপনার জন্য ব্লগার প্লাটফর্ম টি ভালো হবে কেননা ব্লগার প্লাটফর্ম ব্যবহার করা অনেক ইজি অনেকেই খুব সহজেই বুঝতে পারে এর সেটিং করাটাও সহজ অন পেজ এবং অফ পেজ আপনি খুব সহজেই বুঝতে পারবেন, শুধুমাত্র আপনাকে একটি ডোমেইন কিনতে হবে তাহলে আপনি কিছুদিনের মধ্যেই আপনার ব্লক rank করাতে সক্ষম হবেন, ব্লক এ পোস্ট করা অনেক সহজ.

আপনি হয়তো জেনে থাকবেন গুগল সব সময় তাদের প্রডাক্ট কে বেশি রান করাতে উৎসাহিত থাকেন আর এর ফ্যাসালিটি বেশি আপনি যদি ব্লগারে 15 থেকে 20 পোস্ট রান করাতে পারেন এবং সেই পোস্টগুলি ইউনিক হয় তাহলে অবশ্যই আপনার পোস্টগুলি গুগলে প্রথম পৃষ্ঠায় আসবে এবং 20 থেকে 30 দিনে আপনার ব্লগে ট্রাফিক অনেক বেড়ে যাবে আপনার ব্লগে যদি 100 ট্রাফিক আসে তাহলে আপনার ব্লকটি অবশ্যই অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভ হবে এবং আপনি ভালো রোজগার করতে সক্ষম হবেন.

আপনার ব্লগ সাইটে যখন ট্রাফিক আসা শুরু হবে আর আপনার ব্লগ সম্পর্কে বুঝতে কোন সমস্যা হবে না তখন আপনি চাইলে ব্লক থেকে মাইগ্রেট করে ওয়ার্ডপ্রেসে ট্রান্সফার করতে পারবেন সেক্ষেত্রে আপনার ব্লক পোস্টগুলিতে কোনরকম এফেক্ট আসবেনা.

 

 

কীভাবে একটি ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ শুরু করবেন। How to Start a WordPress Blog.

ওয়ার্ডপ্রেস একটি জনপ্রিয় প্লাটফর্ম আপনি যদি ওয়াল পেজ থেকে ব্লক বানাতে চান তাহলে সর্বপ্রথম আপনাকে একটি ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে হবে, আপনি চাইলে Dianahost থেকে কিনতে পারেন এখানে আপনি অনেক ভাল মানের ডোমেইন এবং হোস্টিং পাবেন.

ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটল করার পর আগে পোষ্ট লিখবেন না, প্রথমে আপনার ব্লক ছেটিং গুলো চেক করে নেন. সবচেয়ে ইম্পরট্যান্ট যে সেটিং তা হল পার্মালিনক, অবশ্যই পার্মালিনক এসইও ফ্রেন্ডলি করে নিবেন. আপনি হয়তো খেয়াল করেছেন ব্লগার থেকে কোন পোস্ট করলে পার্মালিনক এর সাথে একটি ডেট ফরমেট অ্যাড হয়ে থাকে, আপনাকে এদিকে খেয়াল রাখতে হবে ওয়ার্ডপ্রেস থেকে যখন আপনি কোন পোস্ট পাবলিশ করবেন যেন ব্লগের মত ডেট ফরমেট এড না হয়ে থাকে, কারণ, গুগোল এরকম ডেট ফরমেট অ্যাড হয়ে থাকা লিংক পছন্দ করেনা, আর এর জন্য আপনাকে কাস্টম পার্মালিনক করে নিতে হবে.

“নিচে একটি স্ক্রিনশট এক্সাম্পল এর জন্য দেখানো হলো আপনি চাইলে ফলো করতে পারেন”

How to Start a WordPress Blog

 

গুরুত্বপূর্ণ থিম। Important Themes

আমরা এখন থিমস সম্পর্কে কথা বলতে যাচ্ছি, ব্লক পোস্ট পাবলিস্ট করার আগে আপনাকে থিমস চেঞ্জ করে নিতে হবে আপনি আপনার ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড ওপেন করার পর নিচে দেখতে পারবেন appearance থেকে থিমস সে ক্লিক করে নিউ থিমস ক্লিক করবেন, এখন আপনার পছন্দ মতন থিমস ইনস্টল করে নেন এমন একটি থিমস ইনস্টল করবেন থিমস এ যেন মোবাইল ফ্রেন্ডলি সাপোর্ট থাকে. থিমস এর জন্য আপনাকে কোন রকম টাকা খরচ করতে হবেনা ফ্রিতে আপনি থিমস ইনস্টল করতে পারবেন.

নতুন থিমস ইনস্টল হয়ে যাওয়ার পর পুরাতন থিমস ডিলিট করে ফেলুন, কেননা একাধিক থেমস থাকার কারণে আপনার সাইটটি স্লো হতে পারে তাই আপনি শুধুমাত্র একটি থিমস রেখে অন্যান্য থিমস ডিলিট করে ফেলুন.

 

 

পোস্ট শুরু করার আগে? Before Start Posts?

এখন আপনি চাইলে আপনার ব্লগ পোস্ট পাবলিস্ট করতে পারেন, তার আগে আপনার ওয়েলকাম পোস্ট মানে “হ্যালো ওয়ার্ল্ড” একটি পোস্ট আপনার ব্লগে অলরেডি পাবলিস্ট করা হয়েছে আপনি ওই পোস্টটি ডিলিট করে নিন, এর জন্য আপনাকে যা করতে হবে, প্রথমে ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড থেকে পোস্ট এ ক্লিক করে অল পোস্ট এ ক্লিক করেন, এখন আপনি দেখতে পাবেন হ্যালো ওয়ার্ল্ড নামে একটি পোস্ট পাবলিস্ট করা হয়েছে ওই পোস্টটি আপনি ডিলিট করবেন এর জন্য আপনাকে ট্রাস্ট সে ক্লিক করতে হবে ট্রাস্ট এ ক্লিক করার পর একটু উপরে দেখতে পাবেন ট্রাস্ট নামে একটি অপশন দেওয়া আছে, আপনি ওই ওপরের ট্রাস্ট অপশনে ক্লিক করেন, হ্যালো ওয়ার্ল্ড পোস্ট এর সাথে দেখতে পাবেন ডিলিট অপশন দেওয়া আছে “পার্মানেন্টলি ডিলিট” আপনি তাতে ক্লিক করেন এবং পোস্টটি পার্মানেন্ট ডিলিট হয়ে যাবে, এরপর আপনি নতুন পোস্ট পাবলিস্ট করা শুরু করেন.

প্রতিদিন পোস্ট পাবলিস্ট করার সাথে সাথে আপনার সাইটটি ব্যাকলিংক করাটাও জরুরি, এতে আপনার ব্লগ সাইট টি ট্রাফিক বৃদ্ধি পাবে, গুগোল এ সার্চ করে আপনার রিলেটেড পোস্ট পড়েন এবং কমেন্ট করেন এতে আপনার সাইটটি ব্যাকলিঙ্ক হবে এবং আপনার ব্লগ পোস্ট ট্রাফিক বেড়ে যাবে, যখন আপনার ব্লগে 20 থেকে 30 পোস্ট কমপ্লিট হবে, আপনি দেখতে পাবেন আপনার ব্লগে প্রতি মাসে 100 থেকে 300 ট্রাফিক আসছে, যখন আপনি দেখতে পাবেন 500 কিংবা তারও বেশি ট্রাফিক আসছে আপনার সাইটে তখন আপনি এডসেন্স এ এপ্লাই করলে আপনার সাইট অবশ্যই (Approved) অনুমোদিত হবে.

 

 

যা বলতে চাচ্ছি। What i mean

বন্ধুরা আশা করছি আপনারা বুঝতে পেরেছেন “Wich Platform Best blog for Beginners” এবং এও বুঝতে পেরেছেন ওয়ার্ডপ্রেস এর চেয়ে ব্লগার সাইট এ ট্রাফিক কম আসলেও অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভেদ পাওয়াটা অনেক সহজ তারপরও আমরা ওয়ার্ডপ্রেস সাইট পছন্দ করে থাকি কারণ ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে আমাদের মনের মতো করে ব্লক পাবলিস্ট করতে পারি যা ব্লগারে করা যায় না তো বন্ধুরা আশা করছি আপনারা বুঝতে পেরেছেন যদি কোনরকম সমস্যা মনে করেন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন আমি চেষ্টা করব খুব তাড়াতাড়ি আপনাদের কমেন্ট এর উত্তর দিতে, যদি আপনাদের এই সাইটি ভাল লাগে তাহলে অবশ্যই সাবস্ক্রাইব করবেন এতে করে এই ব্লগে নতুন কোন পোস্ট পাবলিশ হলে আপনারা নোটিফিকেশন মেইল পাবেনঃ

 

 

Leave a Reply

Top